পয়েন্টসম্যান

পয়েন্টসম্যান পদের (নিয়ােগ প্রক্রিয়া, প্রশ্নপদ্ধতি, প্রস্তুতিসহ) জেনে নিন

পয়েন্টসম্যান (গ্রেড-১৮) পদে ৭৬২ জন নিয়ােগ দেবে বাংলাদেশ রেলওয়ে। এইচএসসি বা সমমানের পরীক্ষায় পাস হলেই আবেদন করা যাবে। অনলাইনে আবেদন করতে হবে ২৮ ডিসেম্বরের মধ্যে। নিয়ােগ প্রক্রিয়া, প্রশ্নপদ্ধতি, প্রস্তুতিসহ দরকারি তথ্য নিয়ে জেনে নিনঃ

আবেদন করতে হলেঃ

আবেদন করতে হলে কোনাে স্বীকৃত শিক্ষা বাের্ড থেকে কমপক্ষে উচ্চ মাধ্যমিক পাস এবং সুঠাম দেহের অধিকারী হতে হবে। পাবনা ও লালমনিরহাট ছাড়া সব জেলার প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবেন। আবেদন শুরু ২৩ নভেম্বর এবং আবেদন শেষ ২৮ ডিসেম্বর ২০১১।

নিয়ােগ পরীক্ষা যেভাবেঃ

নিয়ােগ পরীক্ষা হবে দুই ধাপে। প্রথমে লিখিত পরীক্ষা হবে ৭০ নম্বরের। সময় বরাদ্দ ৬০ মিনিট। এরপর ৩০ নম্বরের মৌখিক। লিখিত পরীক্ষায় সর্বনিম্ন পাস নম্বর ৫০ শতাংশ অর্থাৎ কমপক্ষে ৩৫ নম্বর পেতে হবে। লিখিত পরীক্ষা হবে-বাংলা ২০, ইংরেজি ২০, গণিত ২০ ও সাধারণ জ্ঞানে। ১০ নম্বরের। লিখিত পরীক্ষায় সাধারণত যে প্রশ্ন আসে তার উত্তর দু-এক কথায় লিখতে হয়। শুধু গণিতের ক্ষেত্রে সমাধান করে দেখিয়ে দিতে হবে। প্রতিটি প্রশ্নের নম্বর ১। কোনাে নেগেটিভ মার্কিং নেই। লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের ৩০ নম্বরের মৌখিক পরীক্ষার মুখােমুখি হতে হবে।

পরীক্ষার প্রস্তুতিরঃ

বাংলা : বাংলা বিষয়ের দুটি অংশ। সাহিত্য আর ব্যাকরণ। প্রস্তুতির শুরুতে বিগত বিভিন্ন নিয়ােগ পরীক্ষার। (সমপর্যায়ের) প্রশ্ন ব্যাখ্যাসহ পড়বেন। বিগত চাকরির পরীক্ষাগুলােতে আসা প্রশ্ন থেকেই অনেক প্রশ্ন হয়তাে কমন পেয়ে যাবেন। তাই বিগত সালের প্রশ্নে কোনাে রকম হেলাফেলা করা যাবে না। তারপর ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত বাংলা বইয়ের লেখক পরিচিত পড়বেন। টেক্সট বুক থেকে পড়তে না পারলেও চাকরির প্রস্তুতির গাইড বই থেকে কয়েকবার রিডিং পড়ে বিভিন্ন লেখক সম্পর্কে ধারণা নিতে পারেন, লেখক পরিচিতি মুখস্থ না করলেও হবে। তারপর প্রাচীন যুগের চর্যাপদ, মধ্যযুগ, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কাজী। নজরুল ইসলাম, জসীমউদদীন, শামসুর রাহমান, মাইকেল মধুসূদন দত্ত, বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় সম্পর্কে বিস্তারিত পড়বেন। প্রয়ােজনে এই কয়জন লেখক-সাহিত্যিকের রচনাগুলাে ছন্দ বা কৌশল বানিয়ে মনে রাখবেন। মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক কয়েকটি গল্প, উপন্যাস ও নাটক এবং বিভিন্ন সাহিত্যিকের ছদ্মনাম ও উপাধি পড়লে আশা করা যায় বাংলা সাহিত্য নিয়ে আর টেনশন করতে হবে না।

বাংলা ব্যাকরণের যেসব টপিকস থেকে প্রশ্ন আসার সম্ভাবনাঃ এককথায় প্রকাশ/বাক্য সংকোচন, বাগধারা, কারক-বিভক্তি, সন্ধি, বানান শুদ্ধি, সমার্থক শব্দ, বিপরীত শব্দ, শব্দের । প্রকারভেদ (কোনটা কোন দেশি শব্দ), সাধু ও চলিত রূপ, সমাস, পদ প্রকরণ, ক্রিয়ার কাল, পরিভাষা, উপসর্গ প্রভৃতি। এ ছাড়া আরাে ভালাে প্রস্তুতির জন্য ব্যাকরণের অন্যান্য টপিকস থেকেও অনুশীলন করতে পারেন। ব্যাকরণের প্রস্তুতি নিতে হবে মুনীর চৌধুরী রচিত নবম-দশম শ্রেণির বাংলা ব্যাকরণ বই থেকে। আর অনুশীলনের জন্য। বাজারের ভালাে মানের কোনাে একটা প্রকাশনীর বই পড়া যেতে পারে, বিশেষ করে প্রতিটি অধ্যায়ের শেষে দেওয়া। বিগত সালের প্রশ্নগুলাে। ভালাে মানের একটা বই-ই যথেষ্ট। একাধিক বই কেনার প্রয়ােজন নেই।

ইংরেজি : ইংরেজির বিষয়ের দুটি অংশ। গ্রামার আর লিটারেচার। লিটারেচার অংশ থেকে প্রশ্ন আসার সম্ভাবনা। কম। ভাল প্রস্তুতি নিতে হবে গ্রামার অংশে। যেসব টপিকস থেকে প্রশ্ন আসার সম্ভাবনা আছে—(1) Parts of Speech, (2) Identification of Parts of Speech, (3) Interchange Parts of speech, (4) Phrase & Clause, (5) Gerund & Participle, (6) Number & Gender, (7) Preposition, (8) Right form or Verb, (9) Voice & Narration, (10) Subject-Verb Agreement, (12) Conditional Sentence, (13) Synonym & Antonym, (14) Spelling, (15) One Word Substitutions, (16) Changing Sentence প্রভৃতি।

গণিত :গণিতকে তিনটি অংশে ভাগ করা যায়। পাটিগণিত, বীজগণিত ও জ্যামিতি। তবে পাটিগণিত থেকেই ৯-১০টি। প্রশ্ন আসার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই এ অংশ সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। গণিতের প্রস্তুতির জন্য পঞ্চম থেকে অষ্টম শ্রেণির গণিত বই থেকে পাটিগণিত করবেন। বুঝে বুঝে করবেন। তাড়াহুড়ার কিছু নেই। এখনাে পরীক্ষার যতটুকু সময় আছে তাতে নিয়মিত বুঝে বুঝে অনুশীলন করে গণিতে ভালাে করা। সম্ভব। পাটিগণিতের যেসব টপিকস গুরুত্বপূর্ণ-মুনাফা, লাভ-ক্ষতি, শতকরা, অনুপাত, মৌলিক ও বাস্তব সংখ্যা, ঐকিক নিয়ম, বয়স, ভগ্নাংশ, গড়, সময় ও দূরত্ব, লসাগু ও গসাগু, নৌকা ও স্রোতের বেগ প্রভৃতি। বীজগণিত থেকে ৩-৪টি প্রশ্ন আসতে পারে। বীজগণিতের প্রস্তুতির জন্য যেসব টপিকস বেশি গুরুত্ব দিতে হবে, তা । হালাে বীজগাণিতিক রাশি, উৎপাদককে বিশ্লেষণ, মান নির্ণয়, সূচক, লগারিদম ও ধারা প্রভৃতি। গণিতের শেষ অংশ হলাে জ্যামিতি। জ্যামিতি থেকে ২-১টা প্রশ্ন আসতে পারে। গুরুত্বপূর্ণ টপিকস হলাে রেখা, কোণ ও ত্রিভুজ, বৃত্ত, পরিমিতিতে বর্গক্ষেত্র, আয়তক্ষেত্র ও সমকোণী ত্রিভুজসংক্রান্ত সমস্যা প্রভৃতি। গণিতে নিয়মিত অনুশীলনই সফলতা আনতে পারে।

সাধারণ জ্ঞান : সাধারণ জ্ঞানে প্রস্তুতির জন্য বিভিন্ন নিয়ােগ পরীক্ষায় আসা বিগত সালের প্রশ্নগুলাে ভালাে করে পড়তে হবে। গুরুত্বপূর্ণ টপিকসগুলাে হলাে—বাংলার ইতিহাস, ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধু, সংবিধান, বাংলাদেশ পরিচিতি, নির্বাহী বিভাগ, বিচার বিভাগ, বাংলাদেশের সংস্কৃতি, বাংলাদেশের যােগাযােগ ব্যবস্থা, বিশেষ করে। রেলওয়ে, বাংলাদেশের সম্পদ, বাংলাদেশের অর্থনীতি, শিক্ষা, খেলাধুলা প্রভৃতি বিষয় গুরুত্বপূর্ণ। এ ছাড়া। আন্তর্জাতিক বিষয়াবলির জন্য আন্তর্জাতিক সংস্থা ও সংগঠন, বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রব্যবস্থা, রাজধানী ও মুদ্রা, ভৌগােলিক । বৈচিত্র্য (পর্বত, সাগর, প্রণালি, খাল), গুরুত্বপূর্ণ সম্মেলন, চুক্তি, খেলাধুলা প্রভৃতি। সাধারণ জ্ঞানে ভালাে প্রস্তুতির। জন্য দৈনিক পত্রিকার অর্থনৈতিক পাতা, আন্তর্জাতিক পাতা, উপসম্পাদকীয় পাতা নিয়মিত পড়া যেতে পারে। এ ছাড়া। বাজারে প্রচলিত সাধারণ জ্ঞানের ভালাে মানের একটি গাইড বই পড়া যেতে পারে।

Leave a Comment

Your email address will not be published.